কিছু গুরুত্বপূর্ণ বাংলা বানানের নিয়ম

 কিছু  গুরুত্বপূর্ণ বাংলা বানানের নিয়ম

✍️✍️✍️আখতারুজ্জামান আজাদ

১.

যেসব প্রশ্নের জবাব 'হ্যাঁ' বা 'না' দ্বারা দেয়া যায়, সেখানে 'কি' বসবে; 'হ্যাঁ' বা 'না' দ্বারা জবাব দেয়া না গেলে 'কী' বসবে। যেমন : তোমার নাম কি জলিল? তোমার পেশা কী? কী কারণে এসেছ আমার কাছে? তুমি কি আমাকে কিছু বলতে চাচ্ছ?

২.

পরিধান করা অর্থে 'পরা' হবে; যেমন : সে শাড়ি পরেছে। আমি পাঞ্জাবি পরি। বাবা শার্ট পরবেন। মামি বোরকা পরতেন।

অন্য সকল ক্ষেত্রে পড়া হবে, যেমন : সে বই পড়ে। বৃষ্টি পড়ছে। সে প্রেমে পড়েছে। তিনি পড়ে গিয়ে ব্যথা পেয়েছেন। প্রশ্ন কমন পড়েনি। শেয়ারবাজার পড়ে গেছে।

৩.

ভুল : খেলা চলাকালীন সময়

শুদ্ধ : খেলা চলাকালে/ খেলা চলার সময়ে

৪.

ভুল : সব বন্ধুদেরকে বলেছি।

শুদ্ধ : সব বন্ধুকে বলেছি।

৫.

শিরোচ্ছদ না, 'শিরশ্ছেদ'। শ্ ছ = শ্ছ।

৬.

'দরিদ্র' বিশেষণ আর 'দারিদ্র্য' বা 'দরিদ্রতা' বিশেষ্য, 'দারিদ্রতা' বলে কোনো শব্দ নেই।

৭.

'সরণ' মানে অতিক্রান্ত দূরত্ব, 'সরণি' মানে রাস্তা। এভাবে রোকেয়া সরণি, বিজয় সরণি, প্রগতি সরণি ইত্যাদি। এই সরণির সাথে স্মরণের কোনো সম্পর্ক নেই।

৮.

অঙ্ক, পঙক্তি, অপাঙক্তেয়, শৃঙ্খলা, আকাঙ্ক্ষা -- এই শব্দগুলোর যুক্তবর্ণগুলো ভালোভাবে লক্ষ করতে হবে। অঙ্কে ঙ্ক, পঙক্তিতে ঙক্ত, শৃঙ্খলায় ঙ্খ, আকাঙ্ক্ষায় ঙ্ক্ষ।

৯.

মুমূর্ষু, মুহূর্ত, শুশ্রূষা বানানগুলো লক্ষণীয়।

১০.

ধরন ও দরুন বানানে ন; কিন্তু ধারণ, ধারণা, দারুণ বানানে ণ। তুমি কোন্ ধরনের লোক, সে ব্যাপারে আমার ধারণা আছে।

১১.

'দ্রব্যমূল্য' অথবা 'দ্রব্যের দাম' শুদ্ধ। 'দ্রব্যমূল্যের দাম' বলে কিছু নেই।

১২.

উদ্দেশ্য = লক্ষ্য, উদ্দেশ = প্রতি। সংকট নিরসনের উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রপতি জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন, ভাষণ শেষে তিনি ব্রিটেনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন।

১৩.

লক্ষ = লাখ, নজর; লক্ষ্য = উদ্দেশ্য। জীবনের লক্ষ্য পূরণের দিকে লক্ষ রাখতে হবে। আমার দিকে লক্ষ করো। লক্ষ করে শোনো।

১৪.

দাঁড়িপাল্লা, দাঁড়ি-মাল্লা, দাঁড়ি-কমা ইত্যাদি সব দাঁড়িতে চন্দ্রবিন্দু থাকলেও কেবল দাড়ি-মোচের দাড়িতে চন্দ্রবিন্দু নেই।

১৫.

ভারি = খুব, ভারী = ওজনদার। ক্লাসের ভারী-ভারী বই পড়তে ভারি কষ্ট।

১৬.

ভুল : আমি ও সে যাব।

শুদ্ধ : সে ও আমি যাব।

(বাক্যে একাধিক পুরুষ থাকলে উত্তম পুরুষটি শেষে বসবে।)

১৭.

নিচ = নিম্ন, নীচ = জঘন্য। আমাদের নিচতলার ভাড়াটিয়া অত্যন্ত নীচ প্রকৃতির মানুষ।

Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url